1. selimsavar@gmail.com : khobar24 :

ত্যাগীদের বাদ দিয়ে বিএনপি নেতাদের নিয়ে আ’লীগের ওয়ার্ড কমিটি গঠন

  • সর্বশেষ আপডেট : মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর, ২০২১
  • ৩৬ বার পড়েছেন

স্টাফ রিপোর্টার : আশুলিয়ায় দলের ত্যাগী নেতা-কর্মীদের বাদ দিয়ে বিএনপি নেতাদের নিয়ে আ”লীগের কমিটি গঠনের অভিযোগে উঠেছে। ইয়ারপুর ইউনিয়নে একাধিক ওয়ার্ড কমিটি গঠনে এই অনিয়ম করা হয়।

এমনকি সভাপতির স্বাক্ষর ছাড়াই সাধারণ সম্পাদক একাই টাকার বিনিময়ে বিএনপির নেতাকর্মীদের নিয়ে এসব কমিটি গঠন করেছে বলে অভিযোগ রয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, কয়েকদিন আগে আশুলিয়ার ইয়ারপুর ইউনিয়নে এক নং ওয়ার্ডে সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। দলের সভাপতিকে ছাড়াই ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক মজিবর রহমান শাহেদ কমিটি গঠনের কার্যক্রম শুরু করে। নিয়ম অনুযায়ী প্রতিটি ওয়ার্ডে গিয়ে সম্মেলনের মাধ্যমে কমিটি গঠন করার কথা থাকলেও একটি ওয়ার্ডের সম্মেলনের মধ্যেই বাকি ৮টি ওয়ার্ডের কমিটি গঠন করা হয়। ওই ওয়ার্ড থেকেই ইউনিয়নের সকল ওয়ার্ডের সভাপতি ও সম্পাদকের নাম ঘোষনা করেন তিনি।

এর মধ্যে ২নং ওয়ার্ডে সাধারন সম্পাদক করা হয় সোহরাব সরকার নামের এক ব্যক্তিকে। তিনি শ্রমিক দলের আশুলিয়া থানা কমিটির যুব বিষয়ক সম্পাদকের পদে ছিলেন। তার বিরুদ্ধে জমি দখলসহ একাধিক অভিযোগ।

এছাড়াও ওয়ার্ড বিএনপির সহ-সভাপতির এন্তাজ পালোয়ানের ছেলে ইউনুছ পালোয়ানকে তিন নং ওয়ার্ডের সভাপতি করা হয়। ইউনুছ পালোয়ান বিএনপির সক্রিয় কর্মী বলে জানা গেছে।

৯নং ওয়ার্ড বিএনপির সহ সাংগঠনিক সম্পাদক গিয়াস উদ্দিন মোল্লাকে আওয়ামীলীগের ওয়ার্ড সভাপতির পদ দেওয়া হয়েছে। এছাড়াও একাধিক ইউনিয়নে বিএনপির সক্রিয় কর্মী ও পদে থাকা নেতাকর্মীদের নিয়ে কমিটি গঠনের অভিযোগ রয়েছে।

ওয়ার্ড নেতা সাদেকুর, সাইফুল ও হাসিবসহ একাধিক কর্মীরা ক্ষোভের সাথে বলেন, দীর্ঘ দিন যাবৎ আওয়ামীলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত থাকার পরও তাদের অনেক ত্যাগী নেতা কর্মীদের বাদ দিয়ে বিএনপির লোকজনকে দিয়ে কমিটি গঠন করা হয়েছে। যা দলের জন্য অনেক ক্ষতিকর। তাদের দলে অনেক যোগ্য ব্যক্তি থাকার পরও তাদেরকে মূল্যায়ন করা হয়নি।

ইয়ারপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি কাদের দেওয়ান বলেন, দলের ওয়ার্ড কমিটি সম্মেলনের মাধ্যমে প্রতিটি ওয়ার্ডে গিয়ে সবার সম্মতে কমিটি গঠন করার উচিৎ। অথচ মজিবর রহমান শাহেদ একাই একটি ওয়ার্ডে বসে সব ওয়ার্ডের কমিটি গঠন করে দিয়েছে। বিএনপির লোকজনকে দলের সাধারন সম্পাদকের মতো গুরুত্বপূর্ন পদেও বসিয়ে দিয়েছেন বলে অভিযোগ করেন তিনি। কাদের দেওয়ান আরো বলেন, দীর্ঘ দিন যারা দলের জন্য প্ররিশ্রম করেছে তাদেরকে বাদ দিয়ে আওয়ামীলীগের সদস্য পদ নেই এমন ব্যক্তিকে নিয়ে এসে সভাপতি ও সাধারন সম্পাদকের মতো গুরুত্বপূর্ন পদ দিলে সাংগঠনিকভাবে দল দূর্বল হয়ে পড়বে।

এদিকে সাধারন সম্পাদক মজিবর রহমান শাহেদ বলেন, থানা কমিটির সিনিয়র নেতাকর্মীরা কমিটি গঠনের সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন। তাদের নির্দেশেই কমিটি গঠন করা হয়েছে। এছাড়াও সভাপতি কাদের দেওয়ানকে কমিটি গঠনের সময় উপস্থিত থাকার জন্য বলা হলেও তিনি সেখানে উপস্থিত ছিলেন না। টাকার বিনিময়ে বিএনপি নেতাকর্মীদের পদ দেওয়ার বিষয়টি তিনি অস্বীকার করেন। এসময় তিনি বলেন, সব কাজই সঠিক নাও হতে পারে। তবে বিএনপি নেতাদের আওয়ামীলীগে জায়গা নেই। তাদের দেওয়া কমিটিতে যদি ভুলবশত বিএনপির কেউ চলে আসে অবশ্যই তাকে বাদ দেওয়া হবে বলেও জানান তিনি।

এ বিষয়ে সাভার উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি হাসিনা দৌলা বলেন, টাকার বিনিময়ে কেউ যদি বিএনপির লোকজনকে সভাপতি বা সাধারন সম্পাদকের মতো গুরুত্বপূর্ন পদে দায়িত্ব দেয় তাহলে অবশ্যই তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। তিনি খোঁজ নিয়ে এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করবেন বলেও জানান।

খবরটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন :