1. selimsavar@gmail.com : khobar24 :
সর্বশেষ :

নারীদের শ্রেষ্ঠত্বের লড়াইয়ে এবারও নিজেদের প্রমাণ করলো বাংলাদেশ

  • সর্বশেষ আপডেট : বৃহস্পতিবার, ২৩ ডিসেম্বর, ২০২১
  • ৫৩ বার পড়েছেন

অনলাইন ডেস্ক : দক্ষিণ এশিয়ার ফুটবলে নারীদের শ্রেষ্ঠত্বের লড়াইয়ে আরও একবার নিজেদের প্রমাণ করলো বাংলাদেশ। আগের লড়াইয়ে নেপালকে হারিয়ে শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন করেছিলো মারিয়া-তহুরারা। সেবার টুর্নামেন্টটি হয়েছে অনূর্ধ্ব-১৮ বয়সীদের নিয়ে। নাম বদলে এবার সেই টুর্নামেন্ট অনূর্ধ্ব-১৯ চ্যাম্পিয়নশিপ। সেখানেও শ্রেষ্ঠত্ব ধরে রাখলো বাংলাদেশের মেয়েরা। গতকাল কমলাপুরের বীরশ্রেষ্ঠ সিপাহী মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ফাইনালে ভারতকে ১-০ গোলে হারিয়ে শিরোপা নিজেদের করে নেয় বাংলাদেশ। ম্যাচে একমাত্র গোলটি করেন আনাই মোগিনি।
ম্যাচ শুরুর আগেই কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে যায় কমলাপুর স্টেডিয়াম। ম্যাচ গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে সেই চাপ বাড়ে স্টেডিয়ামের গ্যালারিতে।
স্বাগতিক দর্শকদের উল্লাসে শুরু থেকেই ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে খেলতে থাকে বাংলাদেশ। শ্রীলঙ্কাকে ১২-০ গোলে উড়িয়ে দেয়া ম্যাচের একাদশে এদিন চারটি পরিবর্তন আনেন ছোটন। সোহাগী কিসকু, স্বপ্না রানী, আনুচিং মোগিনি ও আফিদা খন্দকারের বদলে একাদশে ফিরেন মনিকা চাকমা, তহুরা খাতুন, ঋতুপর্ণা চাকমা ও নীলুফার ইয়াসমিন। শুরু থেকে বলের নিয়ন্ত্রণে এগিয়ে ছিল বাংলাদেশ। কিন্তু ভারতের জমাট রক্ষণ ভেদ করতে পারছিল না। এরইমধ্যে চতুর্দশ মিনিটে বড় বাঁচা বেঁচে যায় ভারত। মারিয়া মান্ডার দূরপাল্লার শট গোলরক্ষক আংশিকা ঝাঁপিয়ে পড়ে আটকালেও বল গ্লাভসে নিতে পারেননি। দুই ডিফেন্ডারের ফাঁক গলে বেরিয়ে কোণাকুণি শট নেন তহুরা খাতুন, শটে গতি না থাকলেও বল ছুটছিল জালের দিকে। ছুটে গিয়ে গোললাইনের উপর নির্মলা দেবি বল আটকানোর পর গ্লাভসে নেন আংশিকা। বল গোললাইন পেরিয়েছে এমন দাবি করে রেফারি অঞ্জনা রায়কে ঘিরে ধরেন মারিয়া-মনিকারা। পরিস্থিতি অবশ্য ভালোভাবেই সামলেছেন নেপালের এই রেফারি। ২৪তম মিনিটে গোলবঞ্চিত হয় বাংলাদেশ। থ্রো ইনে সতীর্থের কাছ থেকে ফিরতি পাস পেয়ে উঁচু শট নিয়েছিলেন আনুচিং মোগিনি। বল গোলরক্ষককে ফাঁকি দিয়ে দূরের পোস্টে লেগে ফিরে। দ্বিতীয়ার্ধেও প্রথম শুরুতেই শামসুন্নাহারের দূরপাল্লার শট ক্রসবারে লেগে প্রতিহত হলে গোল বঞ্চিত হয় বাংলাদেশ। ৪৯ মিনিটে মনিকা চাকমার ফ্রিকিকে মাথা ছোঁয়াতে ব্যর্থ হন আঁখি মারিয়ারা। মাঝমাঠ দখল নিয়ে একের পর এক আক্রমণ শানাতে থাকে বাংলাদেশ। কিন্তু মারিয়া, তহুরা, রিপার সেই আক্রমণ খেই হারায় ভারতের বক্সে গিয়ে। ম্যাচের ৫৮ মিনিটে নীলার শট শামসুন্নাহার জুনিয়রের হেড অল্পের জন্য লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়। ম্যাচের ৬৩ মিনিটে ভারতের একটি আক্রমণ দক্ষতার সঙ্গে প্রতিহত করেন বাংলাদেশের গোলরক্ষক রূপনা চাকমা। ম্যাচের ৭৫তম মিনিটে অফসাইডের কারণে গোল বাতিল হয় বাংলাদেশের। জটলার মধ্যে বল জালে জড়ান শামসুন্নাহার জুনিয়র। তবে বল জালে জড়ানোর আগের অফসাইডের বাঁশি বাজান ম্যাচের রেফারি অঞ্জনা রায়। ম্যাচের দ্বিতীয়ার্ধেও পুরোটা সময়ই ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ নেয় বাংলাদেশ। এর সুফল আসে ম্যাচের ৮০তম মিনিটে। রিপার ক্যাটব্যাকে আনাই মোগিনির শট ভারত গোলরক্ষকের হাত ফসকে জালে জড়ালে লিড নেয় বাংলাদেশ (১-০)। এই লিড ধরে রেখেই উৎসবে মাতে বাংলাদেশ। এর আগে সাফ অনূর্ধ্ব-১৫ এবং ১৬ ফুটবলের শিরোপাজয়ী বাংলাদেশ। এসব কীর্তিকেও ছাড়িয়ে যাওয়া অর্জন হচ্ছে এএফসি অনূর্ধ্ব-১৬ মহিলা ফুটবল টুর্নামেন্টের চূড়ান্ত পর্বে খেলা। ২০১৭ সালের পর ২০১৯ সালেও তারা খেলে ফুটবলের সেই কঠিন মঞ্চে। সেই ধারাবাহিকতায় ঘরের মাঠে আরও একবার আনন্দের উপলক্ষ্য এনে দিলো মেয়েরা।

বাংলাদেশ একাদশ : রূপনা চাকমা, মারিয়া মান্ডা, শামসুন্নাহার সিনিয়র, আনাই মোগিনি, আঁখি খাতুন, মনিকা চাকমা, তহুরা খাতুন, ঋতুপর্ণা ঘোষ, নিলুফা ইয়াসমিন নিলা, শাহিদা আক্তার রিপা ও শামসুন্নাহার জুনিয়র।

 

খবরটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন :